সুগন্ধা বধ্যভূমি, ঝালকাঠি

একাত্তরের নয় মাস ঝালকাঠির বিভিন্ন স্থানে গণহত্যা, লুট আর নারী নির্যাতনসহ হানাদার বাহিনী নির্মম নির্যাতন চালায় । ঝালকাঠি জেলার সবচেয়ে বড় বধ্যভূমি শহরের সুগন্ধা নদী পাড়ে বর্তমান পৌর খেয়াঘাট এলাকায় (Mass grave of Jhalakati)। ১৯৭১ সালের ৩০ মে একদিনেই এখানে ১০৮ জন নিরিহ বাঙ্গালী ও মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়। জেলার বেশাইন খান গ্রামে ৭ জুন হানাদাররা মসজিদ থেকে নামাজ পড়া অবস্থায় ধরে এনে সেখনকার বধ্যভূমিতে হত্যা করে অনেক মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিজনকে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের তথ্য অনুযায়ি জেলায় ২৪টি বধ্যভুমির তালিকার কথা জানাগেছে । তবে প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে এর সংখ্যা আরো অনেক বেশি। কিন্তু আত্মত্যাগী এই সব শহীদের স্মৃতি রক্ষায় স্বাধীনতার ৪০ বছরেও বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষন হয়নি। বধ্যভূমিরগুলোর কোথায়ও সরকারী উদ্যোগে একটিও স্মৃতি সৌধ নির্মান হয়নি। জেলার সবচে বড় পৌরখেয়াঘাট এলাকায় একাত্তরের বধ্যভূমিতে নির্মিত হয়েছে পৌর কশাইখানা। আর সারা দেশের সাথে ঝালকাঠি জেলায় নির্মিত জেলা শহীদ স্মৃতি ফলকটিতে নির্মানের ৬ মাসের মধ্যেই ফলক থেকে মুছে গেছে শহীদের নাম ।